হার্টের অপারেশনে বহির্বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ

২০ ডিসেম্বর ২০১৯

MICS (Minimally invasive cardiac surgery) পদ্ধতিতে করোনারী বাইপাস সার্জারী বাংলাদেশে শুরু হয়েছে অনেক দিন হলো। এর পর এই মিনিমাম ইনভেসিভ পদ্ধতিতে হৃদপিণ্ডের ভালব রিপ্লেসমেন্ট ও করা হয় এবং এতে সফলতার হার এখন পর্যন্ত শতভাগ।

কিছুদিন আগে এই MICS পদ্ধতিতেই বাংলাদেশে প্রথমবারের মত করা হয় ডাবল ভালব রিপ্লেসমেন্ট এবং রোগী সুস্থ হয়ে বাড়িও ফেরেন। জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে এ পর্যন্ত MICS পদ্ধতিতে মোট ১২টি অপারেশন করা হয়েছে এবং গতানুগতিক বাইপাস সার্জারীর চাইতে এটা অনেক বেশী সুবিধাজনক।

বলা হয়ে থাকে বাংলাদেশের সব চাইতে বেশী যে রোগী পাশের দেশে যায়, তারা হলেন ক্যান্সার আর হার্টের রোগী। বিশেষত যাদের CABG(Coronary Artery Bypass Grafting) করা দরকার হয়। আশা করা যায় রোগীদের বিশ্বাস অর্জন করতে পারলেই এই হার অনেকটা কমিয়ে আনা সম্ভব।

হার্টের অপারেশনের এই যুগান্তকারী অর্জনের পিছনে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের একদল দক্ষ কার্ডিয়াক সার্জারীর টিম এবং অন্যতম একজন টিম মেম্বার যার হাত ধরে এই পরিবর্তন আসা শুরু করেছে তিনি হলেন ইউনিট চিফ, এসোসিয়েট প্রফেসর এবং রেসিডেন্ট সার্জন ডা.আশরাফ সিয়াম।

সহযোগী অধ্যাপক ডা. আশরাফ সিয়াম

আশা করা যায় তাদের হাত ধরে বাংলাদেশে কার্ডিয়াক সার্জারী এগিয়ে যাবে অনেকদূর। এক সময় বাংলাদেশ থেকে আর একটি রোগীও অন্য দেশে কার্ডিয়াক সার্জারীর জন্য যাবে না এবং বহিরাগত রোগীদের ও নিজ দেশে সুচিকিৎসা দেয়া যাবে।

তথ্যসূত্রঃ নাহিদ হাসান রিফাত
স্টাফ রিপোর্টার/ নাজমুন নাহার মীম

Platform

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

Next Post

ক্যাপ্টেন ডা. সৈয়দ মইন উদ্দিন আহমেদ | এক বীরপ্রতীকের যুদ্ধ

Sat Dec 21 , 2019
২১ ডিসেম্বর ২০১৯ বিজয়ের এই ডিসেম্বর মাসে স্মরণ করা হচ্ছে ক্যাপ্টেন ডা. সৈয়দ মইন উদ্দিন আহমেদ, একজন বীর প্রতীক, কে। ক্যাপ্টেন ডা. সৈয়দ মইন উদ্দিন আহমেদ ১৯৭০ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে পাস করেন। তিনি K-23 ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন। একই বছর ডিসেম্বরে পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগ দান করেন। তার প্রথম পোস্টিং […]

সাম্প্রতিক পোষ্ট