• প্রথম পাতা

February 20, 2016 4:09 pm

প্রকাশকঃ

বিরল রোগে আক্রান্ত আবুল বাজানদারের ডান হাতের পাঁচ আঙ্গুলে প্রথম অস্ত্রোপচার সফলভাবেই সম্পন্ন হয়েছে।

শনিবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের সমন্বয়ক ডাঃ সামন্ত লাল সেন ও ডা. আবুল কালামের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দল তার অস্ত্রোপচার শুরু করেন। বেলা পৌনে ১টার দিকে এই অস্ত্রোপচার শেষ হয়।

অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক দলে থাকা ডা. তানভীর আহমেদ।
সামন্ত লাল সেন স্যার বলেছেন ” প্রায় সাড়ে ৩ ঘণ্টা ধরে আমরা আবুল বাজানদারের হাতে এই জটিল অস্ত্রোপচারটি করেছি। প্রাথমিক অবস্থায় ডান হাতের কনিষ্ঠ ও বৃদ্ধাঙ্গুলে অস্ত্রোপচার করে তা স্বাভাবিক করবো বলে ভাবছিলাম। কিন্তু দুই আঙ্গুলে অস্ত্রেপচার করার পর যখন দেখলাম বাজানদারের রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক আছে তখন আমরা তার হাতের পাঁচটি আঙ্গুলেই অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেই। “।
জটিল এই অস্ত্রোপচারটির সময় হাসপাতালের অনেক সিনিয়র জুনিয়ার চিকিৎসকরাও উপস্থিত ছিলেন। বর্তমানে তিনি ভালো আছেন এবং তার জ্ঞান ফিরে এসেছে।

বাজানদারের হাতে গাছের শেকড়ের মতো জিনিসগুলো আবার ফিরে আসবে কিনা সে প্রসঙ্গে ডা. সামন্ত লাল সেন স্যার বলেন, ‘এর আগে বাজানদারের রক্ত, আক্রান্ত অংশের টিস্যু ও লালা যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়েছিল পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য। সেখান থেকে রিপোর্ট আসার পরই এ সম্পর্কে বলা যাবে। তবে যদি এসব জিনিস আবার ফিরে আসে তবে তা প্রতিরোধ করা আশা করি সম্ভব হবে। কারণ বাজানদার এরপর থেকে চিকিৎসকদের নজরদারিতে থাকবেন।’

এর আগে বাজানদারের চিকিৎসায় যুক্তরাষ্ট্রের চিকিৎসকরা সহযোগিতা করবেন বলেও জানানো হয়েছিল। এছাড়া তার চিকিৎসার সম্পূর্ণ খরচ সরকার বহন করবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন সরকার।

উল্লেখ্য, গত ৩০ জানুয়ারি খুলনা থেকে এসে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি হন আবুল বাজানদার। তিনি গত ১০ বছর ধরে বিরল রোগে ভুগছেন। প্রাথমিকভাবে আবুল বাজানদারের রোগটিকে ‘ইপিডার্মোডিসপ্লাসিয়া ভ্যারুসিফরমিস’ বলে ধারণা করা হচ্ছে। এটি ত্বকের একটি অসুখ এবং এটি হয় সাধারণত ভাইরাস থেকে। তবে বিভিন্ন অপচিকিৎসাও এর জন্য দায়ী।

তথ্য ঃ বাংলা ট্রিবিউন

শেয়ার করুনঃ Facebook Google LinkedIn Print Email
পোষ্টট্যাগঃ বৃক্ষমানব,

পাঠকদের মন্তব্যঃ ( 1)

  1. Saydul Aman says:

    operation er video chai




Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

Advertisement
Advertisement
.