ক্যারিয়ার গাইডলাইন : সদ্য যারা ফাইনাল প্রফ দিয়েছেন কিংবা যারা ইন্টার্নি করছেন

17021746_1612636478766366_2369274573648524211_n

 সদ্য ফাইনাল প্রফেশনাল পরীক্ষা সম্পন্ন মেডিকেল ছাত্রছাত্রী দের জন্য।
যারা সদ্য ইন্টার্ন করতেছেন বা ইন্টার্ন সমাপ্ত করেছেন তাদের জন্য।

বাকী সবাই এড়িয়ে যেতে পারেন। এটা আমার ইন্টার্ন পরবর্তী ৪ বছরের নির্যাস।

১। প্রফেশনাল পরীক্ষা পরবর্তী ২-৩ মাস নিচের বিষয় গুলো করতে পারেনঃ

আত্নীয় স্বজন সকলের সাথে একবার দেখাসাক্ষাৎ করতে পারেন। পরবর্তীতে আর না ও হতে পারে।
কয়েকদিন ঘুড়েবেড়াতে পারেন।।অফুরন্ত বিশ্রাম নিতে পারেন। তবে চেষ্টা করবেন ভোরবেলা ঘুম থেকে উঠতে আর রাত ১১ টার মধ্যে ঘুমাতে। ভবিষ্যৎ এ কাজে দেবে। প্রতিদিন ভোরবেলা শরীরচর্চা করতে ভুলবেন না।
আরেকটা কাজ কিভাবে নিবেন জানিনা , সব ধর্মের সকলেরি করা উচিৎ বলে মনে করি। এতে কেউ আপনাকে ধর্মের ভুল ব্যাখ্যা দিতে পারবেনা। সময় নিয়ে সর্বনিম্ন ভাবে কোরআন শরীফের বাংলা অনুবাদ টা পড়ে নিতে পারেন। আমার কাছে ভালো মনে হয়েছে আল কোরআন একাডেমী লন্ডন এর অনুবাদ টি। সাথে বুখারি ও মুসিলম শরীফের হাদীস গুলো একবার পড়ে নেন।এখন ত হাদীসের আ্যপস পাওয়া যায়।। মাত্র কয়েকটা MBএর ব্যাপার। আমরা ত আমাদের নেপালি বন্ধুদের ইংলিশ কোরআন উপহার দিয়েছিলাম।

 

 

 

২। ইন্টার্ন সময়ে নীচের কাজগুলো করতে পারেনঃ

১. DIMS সফটওয়্যার বা QUIMP বইটি সাথে রাখেন

২. সার্জারি ওয়ার্ডের সময় নীচের এসিস্ট গুলো খেয়ালহীন হয়ে করবেন না
Appendicectomy, Cholycistectomy, Laparotomy ( perforations etc.) Hernia & Hydrocele

৩. গাইনী এন্ড অবস এর সময় নীচের ওটি গুলো মনযোগী হয়ে এসিস্ট করেন
C/S, Abdominal Hysterectomy, Vaginal Hysterectomy

৪.  অর্থোপেডিক্স এবং শিশু ওয়ার্ডে একটু মনোযোগী হন। কার্ডিওলজি ওয়ার্ডে ECG Analysis টা ঠিক করে ফেলেন। চর্ম                     বিভাগে প্লেসমেন্ট এর সময় স্কীন এর রোগ গুলো একটু চিনে নেন।
৩।  CMU কোর্স এর আদর্শ সময় ইন্টার্ন অবস্থায়। আপনি CMUD বা যেকোনো একটিতে ভর্তি হয়ে সার্টিফিকেট সংগ্রহ করেন। আর আপনার মেডিকেলের রেডিওলোজী এন্ড ইমেজিং বিভাগে প্রতিদিন ১ ঘণ্টা সময় দেন। আপনে হতে পারবেন সেরা sonologist. কোর্সের প্রতিষ্ঠানের ১০ দিন বা ৩ মাসে আপনি কোন সত্যিকার রোগী ১টা ও পাবেন না। শুধু ডামি পাবেন এনাটমি বুঝার জন্য।

15590139_1369942486384512_4171704475388317438_n

৪। জীবন টাকে গোছান। বিয়ে পর্ব সেরে নিতে পারেন। ক্যারিয়ার পরিকল্পনা করে ফেলেন। দেশে থাকবেন না দেশের বাইরে যাবেন সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন। বিষয় টিক করে ফেলেন। ক্লিনিক্যাল না ব্যাসিক সাবজেক্ট ঠিক করেন। বিসিএস করবেন নাকি কখনো এতে পা মচকাবেন না ঠিক করে ফেলেন।বিসিএস স্বাস্থ্য তে আসবেন নাকি ক্যাডার পরিবর্তন করবেন যেমন বিসিএস প্রশাসন, পুলিশ, পররাষ্ট্র।

৫। বিদেশ যেতে চাইলে IELTS করে ফেলেন। ভালো হতে পারে USMLE, PLAB, AMC. ব্যাসিক সাবজেক্ট বা পাবলিক হেলথ হলে জাপান, জার্মানি কানাডা ও ভালো চয়েস হতে পারে।দেশে বসে ও MRCP করতে পারেন। মালয়েশিয়া তে MS বা MD করতে পারেন, তাদের ডিগ্রি কিন্তু সারাবিশ্বে রিকগনিশন করা। আপনে যেখানে খুশি সেখানেই কাজ করতে পারেন।

 

৬।দেশে বিসিএস এর মাধ্যমে প্রশাসন, পররাষ্ট্র ক্যাডারে প্রবেশ করতে পারেন।এইচ এস সি এর পরে আপনি আপনার মেধার স্বাক্ষর রাখতে পারলে এখানে কেন নয়!

 

৭। যদি আপনি ট্রেনিং ( অনারারি) করতে চান তাহলে ৬ মাস এসব বিষয়ে করতে পারেন Orthopedix, Radiology & imaging. আর কোন বিষয়ে করার দরকার নেই। জেলা শহরে আর উপজেলা তে এতেই বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করার যতেষ্ট সুযোগ আছে। স্যাকমো রা ত ১টা প্লাস্টার করে ২ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। Radiology তে ট্রেনিং নিলে আর CMUকরার প্রয়োজন নেই। আগে পেট ও বাবা মাকে সাহায্য করা দরকার।

 

 

৮। এসব কোর্স CCD, ECD, CCCD(chest disease) , ( CCP( শিশু) এটা এখন বন্ধ হয়ে গেছে) এসব বাদ দেন। যদি করতে চান তবে C Card করতে পারেন।

 

 

৯। যদি ব্যাসিক সাবজেক্ট পড়তে চান তাহলে যা সামনে আসবে তাতেই পরীক্ষা দেন। M Phil, MD/ MS. বিসিএস ও দিতে পারেন। কোন সমস্যা নেই। পকেটে টাকা না থাকলে ২-৩ মাসের খ্যাপ মেরে টাকা জমায়ে রাখেন। কারণ MD/MS, M Philএসব বিষয়ে চান্স পেলে ভর্তি ফি ইনস্টিটিউট ভেদে ৫০ হাজার থেকে ৮০ টাকা পর্যন্ত। অনেক পরিচিতজনকে দেখেছি টাকার সাময়িক অভাবে চান্স পেয়ে ও ভর্তি না হতে।

 

১০। যারা ক্লিনিক্যাল বিষয়ে পড়তে চান তাদের জন্য ২টি বিষয়। জমানো টাকা বা বাবার ব্যাংক ব্যালান্স যতেষ্ট কিনা? বিসিএস করবেন কিনা?

যদি বিসিএস এর সামান্যতম ইচ্ছা থাকে তাহলে অবশ্যি ডিপ্লোমা তে পরীক্ষা দিয়ে ভর্তি হন।।২ বছরের কোর্স শেষ করে বিসিএস এর জন্য অনেক সময় পাবেন। আমাদের চাকরির সর্বনিম্ন বয়স ৩২ বছর। আর FCPS, MS/ MD এসব বড় ডিগ্রি বিসিএস এর পরে করাই উত্তম। লম্বা সময় টেনা হ্যাচড়া করে নিজেকে আর বাবা-মাকে কষ্ট দিয়ে লাভ নেই।

ব্যাংক ব্যালান্স হৃষ্টপুষ্ট হলে অবশ্যি MS/MD, FCPS করতে পারেন প্রাইভেট ভাবে। তারপর ও বলি বিসিএস এর পর করা ভালো।

 

 

 

১১। বিসিএস একটা লম্বা প্রক্রিয়া। তাই যখন সামনে আসবে তখনই প্রিলিমিনারী পরীক্ষা দিবেন। আপনি প্রিলিতে উত্তীর্ণ হয়ে সব কিছু পাশ করে চাকরিতে যোগদান করতে করতে ২থেকে ৩ বছর সময় লেগে যাবে। এমন ও দেখা গেছে ডিপ্লোমা আর বিসিএস প্রিলি একসাথে পরীক্ষা দিয়ে ডিপ্লোমা কোর্স সমাপ্ত করে বিসিএস এ চাকরিতে যোগদানের গেজেট এখনো হয়নি। ( সব কিছু ঠিকমতো পাশ করলে কিন্তু)

 

১২। MS/MD, M Phil পরীক্ষা দিতে হলে ইন্টার্ন সমাপ্তির দিন থেকে কোর্স শুরুর দিন পর্যন্ত ১ বছরের গ্যাপ থাকতে হবে।

 

১৩। ক্লিনিকে সপ্তাহে ৬টি ডিউটি করার চেয়ে খ্যাপ মারাই ভাল। সেটা ৭ দিন/ ১৫ দিন/ ১মাস, ২-৩ মাস ও হতে পারে।
আর যদি খ্যাপ মারার সুযোগ না হয় তাহলে বাসার আশেপাশে অথবা পাশের উপজেলা শহরে একটা চেম্বার দিয়ে দেন। দেখবেন অই ক্লিনিকের সপ্তাহের ৬টি ডিউটি এর চেয়ে বেশি টাকা আয় করতে পারেন যাতে নিজে চলতে পারবেন প্লাস কারো কাছে মাথা নত করতে হবে না। কারণ এসএসসি পাশ ক্লিনিক মালিক আর আপনার হাসপাতালের ৩য় বা ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীর মালিকানাধীন ক্লিনিকে কাজ করে টাকা কামাইয়ের মধ্যে কোন মধু নেই। আর হ্যা অভিজাত হাসপাতাল স্কয়ার, ল্যাব এইড, এপোলো, ইউনাইটেড, ইবনে সিনা, ইসলামী ব্যাংক, আল হারামাইন এসব হাসপাতালে কাজ করতে পারলে অসুবিধা নেই।

 

 

১৪। উপজেলা লেভেলে কাজ করার সময় সহকর্মীর সাথে ভালো সম্পর্ক রাখবেন। যেমন অই উপজেলাতে যে কয়জন আল্ট্রাসনো করে তাদের মধ্যে কমন সম্মতি থাকতে হবে, প্রতিটা আলট্রা তে মোট বিলের ৪০% এর কম টাকায় করা যাবেনা। ( অনেকে ফোন করে বলে ভাই একটা আল্ট্রাতে মাত্র ৮০ টাকা দেয়, বিল রাখে ৫০০ টাকা)।

 

 

১৫। ক্লিনিকে কাজ করার সময় ডিউটির টাকা নিয়ে দরকষাকষি করবেন না। সবাই একটি নির্দিষ্ট টাকায় কাজ করেন। কমে কখনো রাজি হবেন না। যেমন প্রতি ডিউটি ৮০০ টাকা হলে ৮০০ টাকাই। ( অনেককেই দেখি ৬০০, ৭০০ টাকায় রাজি হয়ে যায়।)

 

১৬।খ্যাপ মারার সময় ক্লিনিকের ইতিহাস জেনে খ্যাপ মারতে যান। অনেক ক্লিনিকের মালিক কিন্তু টাকা দিতে চায় না। কম দেয় , অথবা মেরে দেও।অইসব ক্লিনিক বর্জন করুন, অন্যকে বর্জন করতে বলুন। আর মার খেলে লিখিত ডকুমেন্ট বা চেক লিখিয়ে আনতে পারেন। আমি নিজেও ওর ভুক্তভোগী। চেক নিয়ে এসেছি। মামলা চলমান, এখনো ২৫ হাজার টাকা বাকী, পাওনা ছিল ১ লাখ ২০ হাজার টাকা।

 

 

লিখেছেনঃ ডা. নুরুল আমিন চৌধুরী,RpMC, ৩৫ তম ব্যাচ, সেশন ২০০৫-২০০৬

ছবি ঃ The Human Aid Foundation ( Bangladesh)

Ishrat Jahan Mouri

Institution : University dental college Working as feature writer bdnews24.com Memeber at DOridro charity foundation

17 thoughts on “ক্যারিয়ার গাইডলাইন : সদ্য যারা ফাইনাল প্রফ দিয়েছেন কিংবা যারা ইন্টার্নি করছেন

  1. (with due respect)
    এত বেশি অপশন দেওয়া হয়েছে, যে অনেকে কনফিউজড হয়ে যেতে পারে।
    আরেকটু structured হলে মনে হয় ভালো হত। 🙂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

Next Post

১০মার্চ ঢাকায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে ওমেন্স ম্যারাথন

Thu Mar 2 , 2017
‘নারী নিরাপত্তার জন্য ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক স্লোগানে আট মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবসকে কেন্দ্র করে দ্বিতীয়বারের মতো নারী ম্যারাথনের আয়োজন করা হয়েছে। আগামী ১০ মার্চ রাজধানীর হাতিরঝিলে এই ম্যারাথন অনুষ্ঠিত হবে। আয়োজকদের মতে এবারের আয়োজনে দেশী-বিদেশী হাজারো নারী অংশগ্রহণ করবেন। এই আয়োজন উৎসাহী নারীদের জন্য তাদের প্রচার এবং ব্র্যান্ডিংয়ের এক বড় মাধ্যম। […]

সাম্প্রতিক পোষ্ট