কোভিড-১৯ : লকডাউন বান্দরবানের তিন উপজেলা

২৫ মার্চ, ২০২০
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বান্দরবানের লামা, আলীকদম ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় লকডাউন (অবরুদ্ধ) ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন।

লামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুর-এ-জান্নাত রুমি জানান, মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) রাত ৮টা থেকে লকডাউন শুরু হয়েছে। জেলা প্রশাসন থেকে পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত লকডাউনের এই সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের সতর্কতা হিসেবে এই পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শামীম হোসেন। তিনি বলেন, পার্শ্ববর্তী জেলা কক্সবাজারে করোনাভাইরাসের রোগী শনাক্ত হওয়ায় সতর্কতার অংশ হিসেবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

এই তিন উপজেলা থেকে কক্সবাজারে প্রতিদিনই অনেক মানুষ যাওয়া-আসা করে। তাদের মাধ্যমে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। লকডাউনের আওতায়, এই তিন উপজেলার বাসিন্দাদের চলাচল সীমিত করা হয়েছে। সাথে অন্য উপজেলা থেকেও মানুষজন এই উপজেলায় যাতায়াত করতে পারবে না। তবে এই তিনটি উপজেলা ছাড়া আর কোন উপজেলায় এখনো লকডাউন করা হয়নি।

শামীম হোসেন জানান, আপাতত এই তিন উপজেলা ঝুঁকির মুখে রয়েছে বলে আমরা মনে করছি। যার কারণে এই সিদ্ধান্ত। প্রয়োজন হলে এ বিষয়ক কমিটির সাথে আলোচনা করে পরবর্তী নির্দেশনা জানানো হবে বলেও জানান তিনি।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া আফরিন কচি বলেন, নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে প্রতিদিন প্রচুর মানুষ যাতায়াত করে। তাদের মাধ্যমে যাতে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে না পরে তার জন্য সতর্কতার অংশ হিসেবে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন জানিয়েছেন, কক্সবাজারে এখন পর্যন্ত এক জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত করা হয়েছে। সেই ব্যক্তি ও তার দুই ছেলের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। এছাড়া চকোরিয়ার খুটাখালি এলাকায় থাকা তাদের গ্রামের বাড়ি ও এর আশপাশের এলাকা লকডাউনে রয়েছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক / ফাহমিদা হক মিতি

Fahmida Hoque Miti

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

Next Post

রাজধানীর সোহ্‌রাওয়ার্দী হাসপাতাল প্রাঙ্গণে জনস্বার্থে ১০টি বেসিন স্থাপন

Wed Mar 25 , 2020
বুধবার, ২৫শে মার্চ, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ সম্প্রতি কোভিড১৯ সংক্রমণ ঠেকাতে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে অবস্থিত শহীদ সোহ্‌রাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল প্রাঙ্গনের বিভিন্ন স্থানে জনস্বার্থে ১০ টি বেসিন (হাত ধোবার উপকরণসহ) স্থাপন করেছেন হাসপাতালটির পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া। উল্লেখ্য, রোগী এবং রোগীর সাথে হাসপাতালে আগমনকারী সকলকে নিজের সুরক্ষায় উল্লেখিত ব্যবস্থার যথাযথ […]

সাম্প্রতিক পোষ্ট