WHO: লকডাউন শেষ করতে দেশগুলিকে ৬ টি শর্ত পূরণ করতে হবে

প্ল্যাটফর্ম প্রতিবেদন,

শুক্রবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২০

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লুএইচও) বিদ্যমান লকডাউন ব্যবস্থাগুলি থেকে বেরোনোর কৌশল খুঁজছে এমন সরকারের জন্য নতুন নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে। লকডাউনের আওতায় থাকা অনেক দেশ যাদের অর্থনীতির পঙ্গু বা স্থবির হয়ে পড়েছে, কখন এবং কীভাবে নিষেধাজ্ঞাগুলি সহজ করা যায় তার উত্তর সহজে আসেনি। ডাব্লুএইচএও-এর মহাপরিচালক টেড্রোস অ্যাধনম ঘেবরাইয়াস বলেছেন,

“আমরা বুঝতে পেরেছি যে এই দেশগুলি এখন, কখন এবং কীভাবে এই লকডাউনের নিষেধাজ্ঞাগুলি সহজ করতে হবে তা মূল্যায়ন করার চেষ্টা করছে। উত্তরগুলি এই ব্যবস্থা গ্রহণের সময় দেশগুলি কী করে তার উপর নির্ভর করে”।

সংক্রমণ স্তর থেকে নিম্ন স্তরের স্থিতিশীল অবস্থায় স্থানান্তরে সরকার কিভাবে সক্ষম হবে তা নিশ্চিত করার জন্য ডাব্লুএইচওর নির্দেশিকা নথিতে ছয়টি মানদণ্ড চিহ্নিত করা হয়েছে। যে কোনও সরকার যদি বিধিনিষেধ প্রত্যাহার শুরু করতে চায় তার অবশ্যই প্রথমে ছয়টি শর্ত পূরণ করতে হবে:

১. কোভিড -১৯ এর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণাধীন

২. স্বাস্থ্য ব্যবস্থা এবং জনস্বাস্থ্য ক্ষমতা প্রতিটি ক্ষেত্রে সনাক্ত করতে, পরীক্ষা করতে, আলাদা করতে এবং পৃথক করা এবং প্রতিটি যোগাযোগের সন্ধান করতে সক্ষম হয়েছে।

৩. হট স্পট এলাকাগুলো, যেমন নার্সিং হোমগুলিত্ ঝুঁকি হ্রাস করা হয়েছে।

৪. কর্মক্ষেত্রে শারীরিক দূরত্ব এবং হাত ধোওয়ার মতো প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা স্থাপন করা হয়েছে।

৫. ভ্রমণকারীদের কাছ থেকে নতুন আমদানিকৃত কেস নিয়ন্ত্রণ এবং ঝুঁকি পরিচালনা করা।

৬. জনগণ সম্পূর্ণরূপে একটি নতুন “স্বাভাবিকতা”-এর রাষ্ট্রের অধীনে বাস করার জন্য বঝা, নিযুক্ত এবং ক্ষমতাপ্রাপ্ত হতে হবে। নতুন প্রাদুর্ভাবের চক্র রোধ করতে একটি ধীর প্রক্রিয়া থাকতে হবে।

ডাব্লুএইচওর জরুরী প্রোগ্রামের প্রধান ডা. মাইক রায়ান বলেছেন,

“আপনি কিছুই দিয়ে লকডাউনগুলি প্রতিস্থাপন করতে পারবেন না। আমাদের আরও অনেক স্থিতিশীল প্রস্থান কৌশল থাকা দরকার যা আমাদের সাবধানে এবং অবিচলিতভাবে লকডাউন থেকে দূরে সরে যেতে দেয়”।

ডাব্লুএইচও বলেছে যে বেশিরভাগ দেশগুলিতে খুব শীঘ্রই স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে পারে। অর্থনীতি পুনরায় চালু করার প্রয়াসে লকডাউনের অকাল সমাপ্তি পুনরায় সংক্রমণের আবির্ভাব ঘটাতে পারে। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী কোভিড -১৯ এর ২ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এবং এরই মধ্যে ১৩০,০০০ এরও বেশি মানুষ মারা গেছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক/ নিউমুন রাইন রহমান অরভিল

জামিল সিদ্দিকী

A dreamer who want to bring positive changes in health sector in Bangladesh.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

Next Post

রাজধানী ঢাকায় করোনা চিকিৎসায় বাড়ছে হাসপাতাল ও শয্যাসংখ্যা

Sat Apr 25 , 2020
প্ল্যাটফর্ম নিউজ, শুক্রবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২০ দিনদিন দেশের বিভিন্ন জেলায় করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। নতুন নতুন জেলায় মিলছে করোনা রোগীর সন্ধান। করোনার ছোবলে আক্রান্ত সমগ্র বাংলাদেশ! দেশে সবচেয়ে বেশি করোনা শনাক্ত হয়েছে ঢাকা মহানগরীতে। জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের (IEDCR) তথ্য অনুযায়ী, গতকাল বৃহস্পতিবার (২৩ এপ্রিল) […]

সাম্প্রতিক পোষ্ট