• প্রথম পাতা

October 23, 2019 9:16 pm

প্রকাশকঃ

২৩ অক্টোবর ২০১৯:

সীতাকুন্ডের ছোট কুমিরা এলাকার গরীবের ডাক্তার নামে পরিচিত ডাঃ মোঃ শাহ আলম হত্যাকাণ্ডের এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম। গ্রেফতারকৃত আসামীর জবানে জানা গেল হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা।

গত ১৭ অক্টোবর ২০১৯ চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুন্ড থানাধীন কুমিরা এলাকায় ডাঃ শাহ আলমের পরিত্যক্ত লাশ পাওয়া যায়। তাৎক্ষনিকভাবে ধারণা করা হয়, আসামীরা ছুরিকাঘাতের মাধ্যমে নির্মমভাবে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে যায়।

এই চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেফতারের লক্ষে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং ব্যাপক গোয়েন্দা নজরদারী অব্যাহত রাখে। এরই ধারাবাহিকতায় ২২ অক্টোবর ২০১৯ রোজ মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মহানগরীর কোতোয়ালী থানাধীন রেল স্টেশন এলাকা থেকে হত্যা মামলায় প্রত্যক্ষভাবে জড়িত আসামী লেগুনার ড্রাইভার মোঃ ফারুককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭ এর একটি আভিযানিক দল। একইসাথে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ‘বিন মনসুর পরিবহন’ নামক লেগুনাটিও জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে উক্ত হত্যাকান্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা প্রদান করে। সে জানায় গত ১৭ অক্টোবর রোজ বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক ১০টার সময় তার সহযোগীরা তাকে ফোন করে তার চালিত লেগুনা নিয়ে ছারার কান্দী এলাকায় যাওয়ার জন্য বলে। উক্ত এলাকায় যাওয়ার পর অন্যান্য আসামীরা গাড়িতে উঠে এবং তারা গাড়িতে যাত্রী নেওয়ার জন্য রাস্তায় গাড়ি চালাতে থাকে। রাত সাড়ে দশটার দিকে ছোট কুমিরা আসার পর একজন যাত্রী গাড়ি থামানোর জন্য সংকেত দিলে তারা গাড়িটি থামিয়ে যাত্রীকে গাড়িতে নেয়। এরপর গাড়িটি কে-বাই নামক জায়গায় গেলে তাদের আরো কিছু সহযোগী গাড়িতে উঠে।

গাড়ি চালাতে চালাতে রয়েল গেইট পর্যন্ত যাওয়ার পর গাড়িতে থাকা ছিনতাইকারী চক্র ডাঃ মোঃ শাহ আলমের কাছ থেকে টাকা পয়সা ও মূল্যবান জিনিসপত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় ডাক্তার মোঃ শাহ আলম টাকা পয়সা ও জিনিসপত্র দিতে অস্বীকৃতি জানালে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে ছিনতাইকারীরা তাকে ছুরিকাঘাত করে নির্মমভাবে হত্যা করে। এরপর তারা গাড়িটি নিয়ে কুমিরা ঘাটঘর এলাকায় গিয়ে ভিকটিমের লাশ রাস্তার পাশে ফেলে দেয়। পরবর্তীতে আসামীরা লেগুনাটি নিয়ে সাগরপাড়ে যায় এবং সেখানে লেগুনাটি ও হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি ধোলাই করে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত আসামি চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত, চট্টগ্রাম এ ফৌজদারি কার্যবিধি-১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। হত্যা মামলার অন্যান্য পলাতক আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

তথ্যসূত্র: র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম

শেয়ার করুনঃ Facebook Google LinkedIn Print Email
পোষ্টট্যাগঃ

পাঠকদের মন্তব্যঃ ( 0)




Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.

Advertisement
Advertisement
Advertisement
.